বুধবার   ০১ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ১৭ ১৪২৬   ০৭ শা'বান ১৪৪১

পাবনার খবর
২৭

মুজিব শতবর্ষে বয়স্ক ভাতার কার্ড পেলেন শতবর্ষী রাবিয়া

পাবনার খবর

প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০২০  

চার সন্তানের জননী শতবর্ষী রাবিয়া বেগম (১০৩)। স্বামী মারা গেছে কতদিন আগে মনে নেই তার। দুই ছেলে ও দুই মেয়েরাও এখন বয়সের ভারে ন্যুব্জ। উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের চরসেন গ্রামের মৃত চাঁদ আলী ব্যাপারীর স্ত্রী রাবিয়া বেগম। অনেক কষ্টে শতবর্ষী এই বৃদ্ধা জীবনযাপন করলেও ভাগ্যে জুটেছিল না ভাতার কার্ড! 

অবশেষে মঙ্গলবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের দিন শতবর্ষী এই বৃদ্ধার হাতে বয়স্ক ভাতার কার্ড তুলে দিল উপজেলা সমাজ সেবা অফিস। অনুষ্ঠানে ছোট ছেলের স্ত্রী (বৌমা) হাসিনা বেগমকে সঙ্গে নিয়ে ভাতার কার্ড নিতে এসেছিলেন এই বৃদ্ধা। জীবন সায়াহ্নে এসে ভাতার কার্ড হাতে পেয়ে বেজায় খুশি তিনি।

শুধু রাবিয়া বেগমই নয়, সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে উপজেলার বিচলন ইউনিয়নের বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী মিলিয়ে ২০২ জনকে অস্বচ্ছল মানুষকে ভাতার কার্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া উপজেলা ৯৫ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষা উপবৃত্তির চেক বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার মোহাম্মদ রায়হানের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল হামিদ মাস্টার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. ইকতেখারুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান ইছাহক আলী মানিক, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফিরোজা পারভীন, উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার রেজাউল করিম, থানার ওসি সেখ নাসীর উদ্দিন প্রমুখ।

শতবর্ষী রাবিয়া বেগম বলেন, ‘মেম্বার-চেয়ারম্যানের কাছে একটা কার্ডের জন্য অনেক ঘুরেছি, কিন্তু পাই নি। শেষ বয়সে এসে ভাতা পাব ভাবতেই পারিনি। অনেক ভালো লাগছে।’ হাসি মুখে তিনি বলেন, ‘অন্তত ওষুধ ও পান কেনার জন্য কারো কাছে হাত পাততে হবে না।’

উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার রেজাউল করিম বলেন, সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক ইউনিয়ন পর্যায়ে উন্মুক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করে ভাতা বাছাই করতে গিয়ে শতবর্ষী রাবিয়ার দেখা পেয়ে আশ্চর্য্য হই। অথচ তাঁর ভাতার কার্ড অনেক আগেই পাওয়া উচিত ছিল। জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকীর শুরুর দিনে শতবর্ষী এই বৃদ্ধার হাতে ভাতার কার্ড তুলে দিতে পেরে খুব আনন্দ লাগছে বলে জানান তিনি। 

স/সা

পাবনার খবর
এই বিভাগের আরো খবর